প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা সুন্দরবন

ভ্রমণ বিবরণ জুআয়রা হোসেন || 15 February 2018

শহরের যান্ত্রিক জীবনের গণ্ডি ছেড়ে প্রকৃতির কাছে সময় কাটাতে উত্তম জায়গা হচ্ছে সুন্দরবন।


বঙ্গপোসাগর উপকূলবর্তী নোনা পরিবেশে সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন হচ্ছে সুন্দরবন। এই অপরূপ বনভূমি গঙ্গা, মেঘনা ও  ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকায় অবস্থিত। ১৯৯৭ সালে এটি ইউনেস্কো বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। রয়েল বেঙ্গল টাইগারের আবাসভূমি এই বন খুলনা, বাগেরহাট ও সাতক্ষীরা জেলায় অবস্থিত। বাংলাদেশ অংশে সুন্দরবনের আয়তন ৬ হাজার ১৭ বর্গ কিলোমিটার। এটি বন অধিদপ্তর কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত।

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি সুন্দরবনে প্রতিবছর দেশী-বিদেশী হাজার হাজার পর্যটক ঘুরতে আসে। পর্যটন শিল্প দেশের অর্থনীতিতেও বিশেষ অবদান রাখে। এখানকার হিরণ পয়েন্ট, টাইগার পয়েন্ট, কটকা, দুবলারচর ইত্যাদি জায়গা হচ্ছে প্রধান পর্যটন আকর্ষণ। দুবলার চর দিয়ে রয়ে গেছে ছোট ছোট অনেকগুলো নদী, যেগুলো গিয়ে মিশেছে বঙ্গোপসাগরে। আরেকটি আকর্ষণীয় জায়গা হচ্ছে জামতলা সৈকত। এখানে রয়েছে পর্যবেক্ষণ টাওয়ার। যেখান থেকে দেখা যায় হরিণের ছুটোছুটি এবং আরো অনেক প্রজাতির প্রাণীর। আর ভাগ্য ভাল হলে দেখা মিলতে পারে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের।

বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে অবস্থিত সুন্দরবনের প্রধান আকর্ষণ রয়েল বেঙ্গল টাইগার ছাড়াও হরিণ, বানর, কুমির, অজগর, বালিহাঁস, ঈগল, বক, মদনটাক ইত্যাদি নানা রকমের প্রাণী এই বনকে দিয়েছে ভিন্ন বৈচিত্র। যা দেখতে হাজার হাজার পর্যটক প্রতি বছর ঘুরতে আসেন সুন্দরবনে। তাছাড়া রয়েছে সুন্দরী, গেওয়া, পশুর, বাইন, কেওড়া ইত্যাদি নানারকমের উদ্ভিদ। নদী আর গহীন অরণ্যের এক অপূর্ব মিলনমেলা এই বন। নদীর ভেতর দিয়ে লঞ্চ বা ট্রলারে করে ঘুরতে ঘুরতে গাছাপালা, নানা ধরণের বন্য প্রাণী দেখাটাও হবে অনেক রোমাঞ্চকর এবং উপভোগ্য।

সুন্দরবনের বন সম্পদকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে স্থানীয় অনেক শিল্প কারখানা। উদ্ভিদ নির্ভর শিল্পকারখানার মধ্যে রয়েছে নিউজপ্রিন্ট ও হার্ডবোর্ড মিলস, দিয়াশলাই ও নৌকা তৈরির কারখানা। দেশের অধিকাংশ মধু ও মোম সংগ্রহ করা হয় এই বন থেকে। তাছাড়া এই বন জ্বালানী, ঘরের ছাউনী তৈরির উপকরণ, কাঠজাত দ্রব্য, ভেষজ উদ্ভিদ ও পশুখাদ্যের অন্যতম প্রধান উৎস জোগান দেয়। স্থানীয় মানুষের জীবিকা নির্বাহের প্রধান উৎস হচ্ছে এই বন। স্থানীয় লোকজন মূলত মাছ ধরে, মধু ও জ্বালানী সংগ্রহ করে জীবিকা নির্বাহ করে। প্রাকৃতিক দূর্যোগ থেকে মানুষকে রক্ষার জন্য অন্যতম ভূমিকা পালন করে সুন্দরবন।

ঢাকা থেকে সরাসরি খুলনার বাস আছে। তাছাড়া নৌ এবং রেলপথও রয়েছে। তারপর সেখান থেকে যেতে হবে মংলা বন্দর। মংলা বন্দর থেকে সুন্দরবন যাওয়া যায়। থাকার জন্য হোটেল এবং বন বিভাগের রেস্ট হাউজ রয়েছে। তাছাড়া অনেক ট্র্যাভেল এজেন্সি আছে যারা সব রকমের ব্যবস্থা করে দিয়ে থাকে ভ্রমণের জন্য।

A place with natural beauty: Sundarban

Travel Zuaira Hossain on 15 February 2018

Sundarbans is the best place to spend time in nature, leaving the boundaries of city life.


The Sundarbans is one of the largest mangrove forests of the world. It was recognized as a UNESCO World Heritage Site of Bangladesh in 1997. It is located in the delta region of Padma, Meghna and Brahmaputra River at the point where it merges with the Bay of Bengal. The forest extends Khulna, Bagerhat and Satkhira district. In Bangladesh the forest is 6,017km. The forest is regulated by the Forest Department.

Every year thousands of tourist visit Sundarban to enjoy the beauty. Tourism has a great contribution in Bangladesh’s economy. The main tourist attractions of this place are Hiron point, Dublar chor, Tiger point, Kotka etc. There are few small rivers in Dublar chor which has met the Bay of Bengal. Jamtala is another attractive place. There is a watch tower from which one can enjoy the great view. If someone is lucky enough he or she might get to see the Royal Bengal tiger along with different kinds of birds and animals.

The Royal Bengal Tiger resides in Sundarban. There are different kinds of wild animal live here. Crocodile, various kinds of birds, snakes, eagle, deer, monkeys etc are also seen here. Many tourists visit Sundarban every year to see these. There are many kinds of trees in Sundarban. For example, there are kewra, poshur, sundori, golpata etc different kinds of plants grow here. The forest is the perfect combination of river and forest. One can enjoy the thrilling launch journey through the jungle and the view will amaze them.

Many local industries have been formed for the resources of Sundarban. There are newsprint and hardboard mills, match and boat making factories which depend on the resources of the forest. Honey and wax are collected from this forest. Also it is a great source for fuel, wood products, herbal plants etc. Local people lives by the forest. They do fishing, collecting honey and fuel for living. The largest mangrove forest also saves people from various natural calamities.

There are buses available from Dhaka to Khulna. Also one can travel by launch or by train. After that they need to travel to Sundarban from Mangla port. There are some hotels there and also rest houses of Forest Department for night stay. Also there are many travel agencies who manages everything for tour.