বিমান দুর্ঘটনা ও এর কারণ

ভ্রমণ বিবরণ দীপান্বিতা সূত্রধর || 15 March 2018

বিমান দুর্ঘটনাগুলো ঘটে অন্যান্য ধরনের মানব ত্রুটির জন্য, যেমন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার, রক্ষণাবেক্ষণ যারা করে ঐসব ইঞ্জিনিয়ারদের ভুলের কারণে। কখনও কখনও দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার কারণে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।


হঠাৎ কোন বিমান দুর্ঘটনার মত খারাপ সংবাদ শুনলে প্রথমেই আমাদের মাথায় আসে কেন হয় এই বিমান দুর্ঘটনাগুলো। পরিসংখ্যানগত ভাবে আকাশ পথে চলাচল এখনো মানুষ সবচেয়ে নিরাপদ বলে মনে করে কারণ বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যুর হার প্রায় ২০ হাজারে ১ জন। বাণিজ্যিক ভাবে যেসব বিমানগুলো চলে অনেক পরীক্ষা নিরীক্ষার পরে সেগুলো রানওয়ে তে নামানো হয় চলাচলের জন্য। অনেক কারণেই ঘটতে পারে বিমান দুর্ঘটনা বা ক্রাশের ঘটনা। উন্নত প্রযুক্তির বিমানগুলোতে জরুরী মুহূর্তে অবতরণের নিরপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা থাকে। কিন্তু শত নিরাপত্তা, হাজার রকমের ব্যবস্থা আর অসংখ্য বার পরীক্ষার পর বিমান চালানো হলেও কিছু জিনিসের জন্য দুর্ঘটনা ঘটেই যায় আর তাহল মানুষের নিজস্ব ত্রুটি। 
যতক্ষণ না পর্যন্ত নির্দিষ্ট ঘটনা জানা না যায়, ততক্ষণ পর্যন্ত দুর্ঘটনার কারণ আন্দাজে ধারণা করা উচিৎ নয়। বিমান চালকের ভুল সিদ্ধান্ত, বৈরী আবহাওয়া, কন্ট্রোল সার্ভিস রুমের ভুল সিদ্ধান্ত, যান্ত্রিক ত্রুটি- এইসব কারণে বেশির ভাগ সময়ে বিমান ক্র্যাশ বা দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। 
বিমান চালকের ত্রুটি আর কন্ট্রোল রুমের সঠিক নির্দেশনার অভাবে শতকরা ৫০ ভাগ বিমান দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। বিমান আসলে বেশ জটিল ধরনের মেশিন। সক্রিয়ভাবে চালিত যন্ত্রগুলোকে আবার দেখাশোনা করতে হয় পাইলট এবং বিমানে থাকা ক্রুদের। তাই একটু হিসাবের গড়মিল হলে ঘটে যায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা। যেহেতু পাইলট ফ্লাইটের প্রতিটি পর্যায়ে বিমানের সাথে সক্রিয়ভাবে অংশ নিচ্ছে, তাই ভুলের জন্য অসংখ্য সুযোগ রয়েছে, যেহেতু গুরুত্বপূর্ণ ফ্লাইট-ম্যানেজমেন্ট কম্পিউটার (এফ এম সি) সঠিকভাবে কার্যকর জ্বালানী উত্তোলনের ভুল পদ্ধতিতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে। কন্ট্রোল রুম থেকে যে নির্দেশনা আসে পাইলটদের কাছে তার ত্রুটির জন্য অনেক সময় ঘটে বিমান দুর্ঘটনা। 
পাইলট আর কন্ট্রোল রুমের ভুল হিসাবের সাথে অনেক সময় বিমানের কোন যন্ত্রাংশের ত্রুটির কারণে ২০% দুর্ঘটনা ঘটে। বিমানের ইঞ্জিনগুলো আগের ইঞ্জিন থেকে অনেক গুণ ভাল এবং পুঙ্খানপুংখ ভাবে কাজ করে, কিন্তু তাও মাঝে মাঝে অনেক খারাপ অবস্থার সম্মুখীন হয় বিমানগুলো। 
প্রায় ১০% বিমান দুর্ঘটনা ঘটে খারাপ আবহাওয়ার জন্য। গাইরোস্কোপিক কম্পাস, উপগ্রহের মাধ্যমে দিকনির্দেশনার ব্যবস্থা থাকলেও বিমান মাঝে মাঝে আকস্মিকভাবে ঝড়, বজ্রপাত, তুষারপাতের শিকার হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পাইলট ও সংশ্লিষ্টরা বৈরী আবহাওয়াকে প্রতিরোধ করতে পারে কিন্তু কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনার জন্য বিমান গুলো দুর্ঘটনার কবলে পরে যায়। 
এছাড়াও বিমান দুর্ঘটনাগুলো ঘটে অন্যান্য ধরনের মানব ত্রুটির জন্য, যেমন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার, রক্ষণাবেক্ষণ যারা করে ঐসব ইঞ্জিনিয়ারদের ভুলের কারণে। কখনও কখনও দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার কারণে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে কারণ বিমান চালনা এবং নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সুক্ষ্ম কাজ। 
সম্প্রতি গত ১২ মার্চ বাংলাদেশ থেকে কাঠমুন্ডুগামী বিমান দুর্ঘটনায় পাইলটসহ একাত্তর জন নিহত হয়েছে। অনেকে বলেন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলারের ভুল নির্দেশনার কারণে এইরকম মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনাস্থল থেকে ব্ল্যাকবক্স উদ্ধার করা হলেও এখনো সথিকভাবে জানা যায়নি সঠিক কারণ। 
যেহেতু, বিমান পরিচালনা একটি সুক্ষ্ম এবং জটিল প্রক্রিয়া, বিমান চালক থেকে শুরু করে রক্ষণাবেক্ষণকারী ইঞ্জিনিয়ার এবং যারা এয়ারলাইন্স সংশ্লিষ্ট ব্যবসা যারা করেন সবাইকেই সচেতন থাকা উচিত যাতে কোন ভাবেই এই ধরণের মর্মান্তিক ঘটনা না ঘটে। 

Airplane crash and its causes

Travel Dipanwita Sutradhar on 15 March 2018

The National Center for Health Statistics estimates the average person’s chances of dying in a plane crash (1 in 20,000) compare to the odds of being struck by lightning or dying in a car accident.


When we suddenly hear bad news like an aircraft accident, the first thought we have in our mind is- how is this possible? Statistically, traveling by air is considered as safer than any other transport medium. Actually, the National Center for Health Statistics guesses the average person’s chances of dying in a plane crash at 1 in 20,000. Compare that to the probabilities of being struck by lightning (1 in 3,000) or dying in a car accident (1 in 100). All the planes and equipment are examined accurately and extensive testing afore being permitted for flight. Advanced aircraft machinery transporters have special preparations for emergency landing. But no matter how progressive the technology, there is one element that is impossible to control and it is human error.
The proportion of crashes caused by pilot error has increased and now stands at around 50% as aircraft have become more trustworthy. An airplane is multifaceted machines that require a lot of management. Because pilots actively engage with the aircraft at every stage of a flight, there are numerous opportunities for this to go wrong, such as a flight-management computer (FMC) properly to miscalculating the required fuel uplift.
Equipment disasters still account for about 20% of aircraft losses, although enhancements in design and manufacturing quality. While engines are significantly more reliable today than they were half a century ago, they still occasionally suffer catastrophic failures.
Yet bad weather accounts for around 10% of aircraft losses. Despite having updated electronic aids like gyroscopic compasses, satellite celestial navigation and weather statistics uplinks, aircraft still has been troubled by storms, snow, and fog.
As well, about 10% of aircraft losses are caused by the disruption. As with lightning strikes, the risk posed by sabotage is much less than many people seem to believe. Nevertheless, there have been many spectacular and shocking attacks by saboteurs. 
The residual losses are qualified to other types of human error, like mistakes made by air traffic controllers or maintenance engineers. Sometimes required to work long shifts, maintenance engineers can make potentially catastrophic blunders.
Recently, on March 12, Kathmandu going US Bangla airplane crashed and 71 people died including Pilots and Cabin crews. Many said that such a tragic accident happened due to the wrong instructions of the Air Traffic Controller. The black box was recovered from the accident, it is still unknown the actual reason behind the accident. 
Since air operations are a delicate and complicated process, from the pilot to maintenance engineers should be aware of those who do business related to the airline so that no such tragedy happens in any way.