ডিজিটাল অর্থনীতির মূলমন্ত্র কেন মোবাইল

প্রযুক্তি ভাবনা আফসানা পারভীন তন্বী || 22 January 2019

আমদের দেশের আই সি টি ডিভিশন সাফল্য অর্জনের লক্ষ্যে এতটাই মরিয়া হয়ে উঠেছে যে, তার কাজ দেখলে বাহবা না দিয়ে উপায় নাই। সম্প্রতি জানা গিয়েছে যে ফেসবুক ব্যবহার এ ঢাকা শহরের অবস্থান আজ দ্বিতীয়।


স্বাধীনভাবে বাঁচার জন্য অর্থনৈতিক স্বাধীনতা মানুষের জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। একটি জাতি যেমন একটি  স্বাধীন দেশের স্বপ্ন দেখে, ঠিক তেমনি একটি পরিবার তথা ব্যক্তি নিজেই চাই তার জীবনের অর্থনৈতিক  স্বাধীনতা। এই স্বাধীনতার লক্ষ্যেই যুগ যুগ ধরে মানুষ ছুটে চলেছে বিভিন্ন দিক-বিদিক রাস্তায় খুঁজেছে নুতন কোন পথ, যেখানে ব্যক্তি একটু স্বাচ্ছন্দ্য, কিছুটা বিলাসিতা বা বেঁচে থাকার সুন্দর একটি পরিবেশ পায়। বহু প্রতীক্ষা, পরিশ্রম আর বহু সময়ের পর মানুষ আজ পেয়েছে ডিজিটাল অর্থনীতি, যা মানুষের জীবনকে করেছে সরল অঙ্কের মত সহজ এবং স্বস্তিপূর্ণ।

আলাদীনের জাদুর চেরাগ এর গল্প সম্পর্কে আমরা প্রায় সবাই অবগত। যেখানে চেরাগ থেকে বের হত একটা দৈত্য আর পূরণ করত আলাদীনের ইচ্ছা । আজ যেন সেই জাদুর দৈত্য এসে পড়েছে মানুষের হাতে হাতে। যেন মানুষ যা ইচ্ছা করছে তাই করতে বা একটি যন্ত্রের মাধ্যমে করাতে পারছে। আজ মানুষ মুহুর্তের মধ্যে এক দেশ থেকে আর এক দেশে কথা বলতে পারছে, যা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র বিংশ শতাব্দীর এই জাদুর দৈত্য “মোবাইল” এর মাধ্যমে। আর এভাবেই মোবাইল একটি শুধুমাত্র যন্ত্রের চেয়েও বেশি এবং হয়ে দাঁড়িয়েছে ডিজিটাল অর্থনীতির মূলমন্ত্র।

এই তো কিছুদিন আগেও অঁজো পাড়া গাঁয়ের ঐ সাধারণ মেয়েটিকে  শিকার হতে হতো সীমাহীন বীড়ম্বনা এবং অনিশ্চয়তায়। যে পরিবারে কিছুটা অর্থনৈতিক সচ্ছলতা আনার জন্য আজ সে শহরে এসেছে, কঠোর পরিশ্রম করছে, কিন্তু মাস শেষে যখন পরিশ্রমের টাকাটা বাবাকে পাঠাবে তখন ভাবতে হচ্ছে বার বার কার কাছে পাঠাবে, কিভাবে পাঠাবে। এরকম বিভিন্ন সমস্যার সম্মূখীন হতে হতো। কিন্তু আজ ঐ মেয়েটি মাস শেষে বেতনের অংশ তার দূর গাঁয়ে থাকা বাবাকে পাঠাচ্ছে মুহুর্তের মধ্যে। তবে আমিতো বলতেই পারি ডিজিটাল অর্থনীতির এই জাদুর দৈত্যটি আজ ঐ সাধারণ মেয়েটির মুখে নিশ্চিত হাসি এনে দিয়েছে। মোবাইল ব্যাংকিং, বিকাশ, রকেট এরকম বহু পন্থা এসে গিয়েছে যার মাধ্যমে মানুষ দূর দূরান্তে টাকা পয়সার লেনদেন করছে এবং নিশ্চিন্তে জীবন যাপন করছে।

এবার তবে প্রতিদিনের জীবন যাত্রায় মোবাইল কিভাবে অর্থনীতির মূলমন্ত্র হয়ে দাড়িয়েছে তার কিছু নমুনা দেখানো যাক। আজ আমরা বাসায় আরামের বিছানায় শুয়ে বাজার করছি যেটা কিনা সম্ভব হয়েছে এই ডিজিটাল দৈত্যর জন্য। ডিজিটাল সোস্যাল মিডিয়া এর মাধ্যমে আজ মানুষ কাঁচা বাজার থেকে শুরু করে দৈনন্দিন আসবাবপত্র এমনকি নিজের পোশাক ও জুয়েলারিও কিনছে হাতের একটা ছোঁয়ার মাধ্যমে। শুধু কি তাই, আজ আর লম্বা লাইনে দাড়িয়ে বিদ্যুৎ বিল বা বাস এবং ট্রেনের টিকিট কিনছে না মানুষ। সবই করছে মুহুর্তের মধ্যে বাসায় বসে বসে মোবাইলের মাধ্যমে।

আজকের অত্যাধুনিক বিশ্বে নেটিজেন শব্দটি, তাই সিটিজেন শব্দটির প্রতিশব্দ এবং দিনকে দিন এর জনপ্রিয়তা বেড়ে চলেছে। নেটিজেন অর্থাৎ নেটওয়ার্ক সিটিজেন সকলেই আজকের বিশ্বকে যতটা সহজলভ্য ভাবে পেয়েছে, তা যেমন এক দশক আগেও অবিশ্বাস্য ছিল, ঠিক তেমনি সামনের দশকেও থাকবে। মোবাইল যন্ত্রটি আমাদের জন্য আরো কত চমক নিয়ে অপেক্ষা করছে সেটিও অভাবনীয়। মানুষ কম্পিউটার ব্যবস্থায় গোটা পৃথিবী ছোট্ট করে একটি আজব বাক্সে বন্দী করেই ক্ষান্ত হয়নি, মোবাইল-ফোনে সেই কম্পিউটিং ব্যবস্থাকেও নিয়ে এসেছে আরো ছোট্ট পরিসরে, ঠিক পকেটে। অর্থাৎ সারা পৃথিবীকে মানুষ করেছে পকেটবন্দী।

উপার্জনে মোবাইল কিভাবে মানুষকে সাহায্য করছে তা আজ এই শতাব্দীতে সবার কাছে পরিস্কার। আজ মানুষের হাতে এসেছে ডিজিটাল বা স্মার্ট ফোন। উপরুন্ত প্রযুক্তির উৎকর্ষতা ও নিত্য নতুন উদ্ভাবন এই স্মার্ট ফোনকে করেছে সহজলভ্য এবং অত্যাধিক কার্যকারী। আজ আর শুধু কথা বলা বা মেসেজ এর আদান প্রদানের মধ্যেই মোবাইল এর ব্যবহার সীমাবদ্ধ নয় বরং তা ছাড়িয়ে পড়ছে মানুষের জীবনের বিভিন্ন উন্নয়ন ক্ষেত্রে। যার সঙ্গে জীবনযাত্রার মান থেকে শুরু করে অর্থনৈতিক সাফল্যও জড়িত।

আজ তৈরী হয়েছে এন্ড্রয়েড ফোন, উইন্ডোজ ফোন, আই ফোন প্রমূখ। তৈরী হচ্ছে নুতন নতুন সব এ্যাপস, যার চাহিদা বাজারে বেশ প্রকট। আজ বিনোদনের সবচেয়ে বড় বিষয়টি যে মোবাইল তা সবার কাজে সুস্পষ্ট। বিভিন্ন ধরনের গেম খেলছে মানুষ মোবাইলে, এমনকি ক্রিকেট বা ফুটবল ও খেলছে দুটি হাতের ছোঁয়ায় মোবাইল এর মাধ্যমে।

আমদের দেশের আই সি টি ডিভিশন সাফল্য অর্জনের লক্ষ্যে এতটাই মরিয়া হয়ে উঠেছে যে, তার কাজ দেখলে বাহবা না দিয়ে উপায় নাই। আজ বাংলাদেশ ক্ষুদ্র আয়ের দেশ হয়েও মোবাইল ফোন ব্যাবহারের দিক দিয়ে বিশ্বে দশম স্থান আদায় করেছে এবং প্রায় ৬০ মিলিয়ন ডিভাইস ইন্টারনেট এর সাথে যুক্ত। সম্প্রতি জানা গিয়েছে যে ফেসবুক ব্যবহার এ ঢাকা শহরের অবস্থান আজ দ্বিতীয়।

আজ দেশের বড় বড় মোবাইল কোম্পানীগুলো ইন্টারনেটের বিপণন এবং ব্যাপক প্রসারে ভূমিকা রাখছে। তবে কি একথা অস্বীকার করার কোন উপায় আছে যে, ডিজিটাল অর্থনীতির মূলমন্ত্র মোবাইল?


Giant Gadget In The World With True Magics

Tech Afsana Tanni on 22 January 2019

Don't be surprised by the term ‘giant’ because simply an electronic gadget has surpassed the old miracles of mythology. Our Ministry of ICT division is desperately doing their responsibility to achieve their goal.


Let the story start by the practice coming from an ancient period. Talking about that period when people had to communicate even by the white pigeon. Think about that girl who used to wait eagerly to get a letter from her lover boy. Think about that passionate people who has to wait a long for the runner who runs throughout the area with news burden. Because he definitely will bring any news of their one and only son, doing job a far from his home.

Few days ago I watched a beautiful TVC. There we find a village girl who has lot of things to talk or share, so many of things to ask(dabi) from her father. She used to disturb her mother asking that when his father will come back. Her mother told her to store her all conversations in a container (achar jar.)Seriously the innocent girl remained to store all of her conversations in the jar. Here we clearly notice the feelings of exceptions, inner soul just crying for to talk

All on a sudden one giant came out in the world from the magical jar. He gave a gadget to fulfill the desire of human being. This is not a story of a fairy tale rather a serious electric gadget that works. In fact, the gadget has brought the entire world to your hand reach.

That village girl can able to talk with her father in a few seconds. That parents doesn’t has to look at the way for the runner rather they feel secure to talk with their son, even to watch his son in the screen of the gadget. So, the gadget get back smile to the human face.

The story doesn’t stop here rather every day the gadget creating a new story of digital life. We used to depend on the gadget for most of our works. We can talk face to face or send message to our friends or relatives even who lives in the abroad. Even the office activities getting to depends on the gadget for several task. Though the gadget make the world handheld but we cannot think even a minute without the surprising gadget-‘Mobile’.

Our  Ministry of ICT division is desperately doing their responsibility to achieve their goal. Now bangladesh has become the tenth most mobile phone user around the world. Moreover, 65 million people are using internet in the country which is the 40 percent of the population.