জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন: ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নতুন তথ্য সংরক্ষণ নীতিমালা

প্রযুক্তি ভাবনা দীপান্বিতা সূত্রধর || 30 May 2018

সম্প্রতি ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন নতুন এক নীতিমালা জারি করেছে যেখানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ডাটা প্রাইভেসি সংরক্ষণ করা হবে। জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন (জিডিপিআর) নামের এই নীতিমালায় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা জানতে পারবে কোথায় তাদের ব্যক্তিগত তথ্য কোথায় ব্যবহার হচ্ছে না হচ্ছে।


সম্প্রতি ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন নতুন এক নীতিমালা জারি করেছে যেখানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ডাটা প্রাইভেসি সংরক্ষণ করা হবে। জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন (জিডিপিআর) নামের এই নীতিমালায় ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা জানতে পারবে কোথায় তাদের ব্যক্তিগত তথ্য কোথায় ব্যবহার হচ্ছে না হচ্ছে। গত ২৫ মে থেকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত ২৮টি স্টেটে এই নীতিমালা আরোপিত হয়েছে। 
জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশনে যেসব কোম্পানি তাদের ইউজার বা ব্যবহারকারীদের তথ্য সংগ্রহ করে রাখে কিনা সেগুলো ব্যাপারে দেখাশোনা করবে। হঠাৎ করে জিডিপিআর বাস্তবায়ন করায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে যেসব প্রতিষ্ঠান ব্যবসা করছে তারা বেশ বিপাকে পরে গেছে। এসব প্রতিষ্ঠানগুলোকে আকস্মিক ভাবে ডাটা প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তন করতে হচ্ছে। জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশনের মাধ্যমে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্ত দেশের মানুষের বিভিন্ন ওয়েবসাইটে যেসব তথ্য দিতে হয় তা অন্য কোথাও ব্যবহার করতে পারবে না।
জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন কার্যকরের পরে যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি শীর্ষস্থানীয় ওয়েবসাইট এখন ইউরোপে বন্ধ রয়েছে বলে জানা গেছে। ‘লস এঞ্জেলেস টাইম’, ‘শিকাগো ট্রিবিউন’, ‘নিউইয়র্ক ডেইলি নিউজ’ ‘অরলান্ডো সেন্টিলেন’, ‘বাল্টিমোর সান’ এর মত বড় বড় নিউজ পোর্টালগুলো আপাতত ইউরোপের ইউজাররা ব্যবহার করতে পারছে না। এসব ওয়েবসাইট তাদের টেকনিক্যাল টিমের সাথে বসে জিডিপিআর পরবর্তীতে কি সিদ্ধান্ত নিবে জানাবে। 
ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত স্টেটগুলো তাদের নিজেদের মত করে জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন আইন প্রয়োগ করবে এবং ইউ এর প্রত্যেক দেশে একজন করে সুপারভাইজার থাকবে যিনি সার্বিক ভাবে সব দেখাশোনা করবেন। এসব দেশের নাগরিকরা তাদের নিজ নিজ দেশের কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের জিডিপিআর সংক্রান্ত যেকোন অভিযোগ জানাতে পারবে। শুধু ইউরোপ ভিত্তিক ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম না, ইউরোপে বাইরের দেশের যেসব প্রতিষ্ঠান সেখানে ব্যবসা করতে আসবে সবাইকেই মানতে হবে এই জিডিপিআর। আর এ আইন না মানলেও দিতে হবে বেশ বড় পরিমাণের জরিমানা। জিডিপিআর লঙ্ঘনের জন্য সর্বোচ্চ ২০ মিলিয়ন ইউরো অথবা ঐ প্রতিষ্ঠানের মোট রাজস্বের ৪% জরিমানা হিসাবে দিতে হবে। 
বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন ভিত্তিক সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠান এবং সামাজিক যোগাযোগগুলো তাদের প্রাইভেসি পলিসি পরিবর্তন করা শুরু করেছে। সম্প্রতি ফেসবুকের বিরুদ্ধে তার ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁসের যে অভিযোগ উঠেছে তার জন্য ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বেশ কড়া নজরদারিতে রেখেছে ফেসবুক, হোয়াটজ অ্যাপ এবং ইন্সটাগ্রাম- এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে। মাইক্রোসফট, টুইটার, অ্যাপেল- জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন এর আওতায় পরেছে। কিন্তু ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নাগরিক ব্যতীত অন্য কেউ এখনো তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা পাবেনা এবং কোন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে পারবেন না। এখনো জিডিপিআর এর ভবিষ্যৎ কি বা পরবর্তীতে অন্য কোন দেশে তা প্রণয়ন করা হবে কিনা তা জানা যায়নি। কিন্তু এই জেনারেল ডাটা প্রোটেকশন রেগুলেশন সারা বিশ্বের ব্যবসায় বেশ বড় প্রভাব ফেলতে চলেছে এতটুকু নিশ্চিত। 

General Data Protection Regulation: EU's policy to preserve user's data privacy

Tech Dipanwita Sutradhar on 30 May 2018

Recently the European Union issued a new policy where Internet users' data privacy will be preserved. General Data Protection Regulation (GDPR) named this policy will allow Internet users to know where their personal information is not being used.


Recently the European Union issued a new policy where Internet users' data privacy will be preserved. General Data Protection Regulation (GDPR) named this policy will allow Internet users to know where their personal information is not being used. This policy has been enforced in 28 states of the European Union since May 25, 2018.
General Data Protection Regulations will oversee companies that collect information about their users. As a result of the sudden implementation of the GDRP, the organizations that are operating in the digital platform have become quite vulnerable. Suddenly, these companies have to change their data privacy policy. Through the General Data Protection Regulations, the websites and online service providers companies will not be able to use the data provided by their users and this is applicable for European Union’s residents. 
After the implementation of the General Data Protection Regulation, some of the top US websites are now closed in Europe. Largest news portals such as 'Los Angeles Times', 'Chicago Tribune', 'New York Daily News', 'Orlando Sentinel', 'Baltimore Sun', are not currently being used by European users. These websites will decide what happens next after sitting with their technical team.
Apiece member state of the EU will have its own execution process and every country will have one GDPR supervisor. The residents of these countries will be able to make any complaint regarding GDPR to their respective country's authorities. 
Besides even if any company cannot follow the law, they will have to pay a very sheer amount of fine. For violation of GDPR, maximum of 20 million euros or 4% of the total revenue of that organization will have to be paid. 
World’s leading online-based service providers and social network sites have started changing their privacy policies. The European Union has kept a strict vigil on Facebook, Whatsapp, and Instagram - these social media channels have recently been accused of leaking their users' personal information. Microsoft, Twitter, and Apple-these companies are also under the General Data Protection Regulation. But any citizen other than the European Union will still not be able to complain about any organization. But this General Data Protection Regulation is going to have a big impact on the world business.